ভাই এবং বোনের চিরস্থায়ী ভালোবাসার গল্প | brother and sister love story

ভাই এবং বোনের চিরস্থায়ী বন্ধন ভালোবাসার গল্প – Golpo

Sharing is caring!

ভাই এবং বোনের ভালোবাসা – Golpo: আমার জন্ম এক পাহাড়ের নির্জন গ্রামে। দিনের পর দিন, আমার বাবা-মা হলুদ শুকনো মাটিতে আকাশের উপড়ে তাক করে লাঙ্গল পিঠে দিয়ে চালাত। একদিন, আমি একটি রুমাল কিনতে চেয়েছিলাম, যা আমার চারপাশের সমস্ত মেয়েদের ছিল এবং আমারো কিনতে মন চাইছিল। সুতরাং, একদিন আমি আমার বাবার ড্রয়ার থেকে ৫০ টাকা চুরি করে। বাবা আমার চুরি করার ব্যপারে জানতে পারে।

“আমার টাকা কে চুরি করেছে?” বাবা আমার ভাইকে এবং আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন। আমি হতবাক হয়ে গেলাম, কথা বলতে খুব ভয় পেলাম। আমরা কেউই দোষ স্বীকার করে নি, তাই তিনি বলেছিলেন, “ভাল, যদি কেউ স্বীকার করতে না চাও, তবে তোমাদের উভয়কেই শাস্তি দেওয়া উচিত!” হঠাৎ আমার ছোট ভাই বাবার হাত ধরে বলল, “বাবা, আমিই সে ছিলাম! ”ভাই আমার জন্য দোষ ও শাস্তি গ্রহণ করেছিল।

Bangla love quotes | Story

মাঝরাতে হঠাৎ হু হু করে চিৎকার করে উঠলাম। আমার ছোট ভাই তার ছোট হাত দিয়ে আমার কান্না মুখটি মুছে দিয়েছিল আর বললছিল , “আপু, এখন আর কাঁদবে না। সব কিছু ঠিক হয়ে গেছে” আমার ভাইয়ের সুরক্ষা দেওয়ার সময়ের কথা আমি কখনই তাকে ভুলব না।

সে সময় আমার ভাইয়ের বয়স ছিল ৮ বছর এবং আমি ১১  বছর বয়সী ছিলাম। আমি যা করেছি তা স্বীকার করার মতো সাহস না পেয়ে তখন নিজের প্রতি আমার ঘৃণা হয়েছিল। বছর পেরিয়ে গেলেও আমার এখনও মনে হয় ঘটনাটি হয়েছিল ঠিক গতকালই। 

আমার ভাই যখন তার মাধ্যমিকের শেষ করে ছিল, তখন ভাই শহরের মধ্য একটি বিদ্যালয়ে পড়াশুনার সুযোগ হয়েছিল। একই সময়ে, আমি প্রদেশের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ হয়েছিল। সেই রাতে, বাবা উঠোনে বসেছিলেন, ধূমপান করছিলেন। 

আমি আমার মার কথা শুনতে পারছিলাম, “আমাদের বাচ্চা দু’জনেরই কি ভাল ফলাফল হয়েছে? খুব ভাল ফল? ”মা তার চোখের পানি মুছে দিয়ে দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললেন,“ কী লাভ তাতে? কীভাবে আমরা দুজনের পড়াশুনার খরচ চালাবো? “

ঠিক ওই সময়ে, আমার ভাই বেরিয়ে গেলেন, বাবার সামনে দাঁড়িয়ে বলল , “বাবা, আমি আর পড়াশোনা চালিয়ে যেতে চাই না, আমি যথেষ্ট বই পড়েছি।” বাবা রেগে গেলেন। “তোমার কেন এত দুর্বল আত্মা? আমার যদি তোমাদের পড়াশুনার জন্য রাস্তায় অর্থের জন্য ভিক্ষা করতে হয় তবেও আমি দুজনকে পড়াশুনা  করিয়ে নিব যতক্ষণ না তোমাদের দু’জনের পড়াশোনা শেষ না হয়! “এবং তারপরে, তিনি টাকা ধার নিতে গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে কড়া নাড়তে শুরু করেছিলেন।

আমি আমার ভাইয়ের মুখের কাছে যতটা সম্ভব আলতো হাত আটকে দিয়েছিলাম এবং তাকে বলেছিলাম, “একটি ছেলেকে তার পড়াশোনা চালিয়ে যেতে হবে। যদি তা না হয় তবে আমরা যে দারিদ্র্যতার মুখোমুখি হচ্ছি তা তিনি কাটিয়ে উঠতে পারবেন না। ”আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম।

কেউই জানত না যে পরের দিন, ভোর হওয়ার আগে আমার ভাই কয়েকটা কাপড় এবং কয়েকটি শুকনো খাবার নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে গেলে। চলে যাওয়ার আগে ভাই আমার বালিশের নিচে একটি চিঠি  রেখে গিয়েছিল, “আপু, বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়া সহজ নয়।

আমি একটি চাকরি খুঁজে নিব এবং আমি তোমার জন্য টাকা পাঠিয়ে দেব ”” আমি বিছানায় বসে চিঠিটি ধরেছিলাম এবং আমার আওয়াজ ভারি হওয়া না  পর্যন্ত আমি কেঁদেছিলাম।

বাবা পুরো গ্রাম থেকে ধার নিয়েছিলেন এবং আমার ভাই তার পিঠে সিমেন্ট ভারি বস্তা বহন করে করে উঁচু উঁচু বিল্ডিং উঠাতো তার বিনিময়ে সে টাকা পয়সা আয় করেছিল, শেষ পর্যন্ত আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার তৃতীয় বর্ষে উঠতে পেরেছি। সে সময়ে আমার ভাইয়ের বয়স ছিল ১৭ বছর এবং আমার বয়স ২০ বছর।

একদিন, আমি আমার ঘরে বসে পড়াশুনা করছিলাম এমন অবস্থায় আমার রুমমেট এসে আমাকে বলেছিল, “বাইরে একজন গ্রাম থেকে আসা লোক  তোমার জন্য অপেক্ষা করছে!” কেন যেন সেখানে একজন গ্রাম থেকে আসালোক তোমাকে খুঁজছেন? আমি বাইরে চলে গেলাম, এবং আমার ভাইকে দূর থেকে দেখলাম। তাঁর পুরো শরীর ময়লা, ধুলা, সিমেন্ট এবং বালিতে আবৃত ছিল। আমি তাকে জিজ্ঞাসা করেছি, “তুমি  আমার রুমমেটকে কেন বলো নি যে তুমি আমার ভাই?”

ভাই হাসিমুখে জবাব দিলো, “আমার চেহারা দেখো তারা কী ভাববে যখন তারা জানতে পারব যে আমি তোমার ভাই? তারা কি তোমাকে দেখে হাসবে না? ”ভাইয়ের কথাগুলো আমার মনে ছোঁয়ে যায় এবং আমার চোখে পানি চলে আসে। আমি আমার ভাইয়ের শরীর থেকে ময়লা জেরে দিলাম এবং তার চেপে ধরে বলেছিলেন, “লোকেরা কী বলবে আমি তা চিন্তা করি না! তোমায় দেখতে যেমনি দেখাক না কেন তুমি আমার ভাই ”। 

তার পকেট থেকে তিনি একটি প্রজাপতির চুলের ক্লিপ বের করলেন। ভাই এটি আমার চুলে রাখলেন এবং বললেন, ‘আমি দেখেছি যে শহরের সমস্ত মেয়েরা এটি পরে আসে। আমার মনে হয় তোমায়ও  একটা থাকা উচিত ’’ আমি আর নিজেকে আটকে রাখতে পারলাম না। আমি ভাইকে আমার বাহুতে টেনে নিয়ে কাঁদলাম। সেই সময়, আমার ভাইটিয় বয়স হয়েছিল ২০ বছর আর আমার বয়স হয়েছিল ২৩ বছর।

আমার বিয়ের পরে আমি শহরেই থাকি। অনেক সময় আমার স্বামী আমার বাবা-মাকে আমন্ত্রণ জানিয়ে আমাদের সাথে থাকার জন্য, কিন্তু তারা চায় নি। তারা বলেছিল যে তারা একবার গ্রাম ছেড়ে চলে গেলে তারা কী করতে হবে তা তারা জানে না। আমার ভাই তাদের সাথে একমত হয়েছেন। ভাই বললেন, “আপু, তুমি কেবল তোমার শ্বশুরবাড়ির যত্ন নিও আমি এখানে মা এবং বাবার যত্ন নেব। “

আমার স্বামী তার কারখানার পরিচালক হয়েছিলেন। আমরা ভাইকে রক্ষণাবেক্ষণ বিভাগের ম্যানেজার হওয়ার প্রস্তাব গ্রহণ করতে বলেছিলাম। তবে আমার ভাই সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। তিনি ম্যানেজার হবার পরিবর্তে মেরামতকারী হিসাবে কাজ করার জন্য জোর দিয়েছিল।

একদিন, আমার ভাই একটি মইকের উপড়ে একটি তারের মেরামত করছিল, তখন সে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পড়েছিল এবং তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। আমি এবং আমার স্বামী তাকে হাসপাতালে দেখতে গিয়েছিলাম। তার পায়ে প্লাস্টার ছিল তার দিকে তাকিয়ে আমি অভিয়োগ করে বললাম, “তুমি কেন ম্যানেজার হওয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলেন? মেরামতকারীর মতো বিপজ্জনক কাজ তুমি কেন করতে গেলে। এখন তুই তোমার দিকে তাকাও – এখন তুমি একটা গুরুতর আঘাত ভোগ করছো।  তুমি কেন আমাদের কথা শোনো নি? ”

ভাই খুব কঠিন মুখ করে তাকিয়ে বলল, তোমার স্বামীর কথা ভাবো, সে কেবল পরিচালক হয়েছে। আমি যদি অশিক্ষিত হয়ে ম্যানেজার হয়ে উঠতাম তবে কী ধরণের গুজব উঠে যেত তুমি কি জানো? “আমার স্বামীর চোখের পানিতে ভরে উঠল, এবং তখন আমি বলেছিলাম,” তবে কেবলমাত্র আমার কারণে তুমি আজ অশিক্ষিত হয়ে আছো! “

ভাই হাত ধরে বলল “কেন তুমি অতীত নিয়ে কথা বলছো?”।  সে সময় তাঁর বয়স ছিল ২৬ বছর এবং আমার বয়স ছিল ২৯ বছর। আমার ভাইয়ের বয়স যখন ৩০ বছর তখন সে গ্রামের এক কৃষকেয় মেয়েকে বিয়ে করেছিল। বিবাহের সংবর্ধনার সময়, অনুষ্ঠানের একজন তাকে জিজ্ঞাসা করেছিল, “আপনি কাকে বেশি সম্মান করো এবং কাকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসো এবং সে কে?”

কোনো চিন্তা না করেই তিনি উত্তর দিয়েছিলো, “আমার বোন।”। এবং সে বলে যেতে লাগলো আমি ঠিক মনে করতে পারি। “যখন আমি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছিলাম তখন আমাদের স্কুলটি অন্য গ্রামে ছিল। প্রতিদিন, আমি এবং আমার বোন ২ ঘন্টা হেঁটে স্কুল এবং বাড়িতে ফিরে যেতে হবে। একদিন, আমি আমার একটি হাতমোজা হারিয়ে ফেলেছিলাম। 

আমার বোন আমাকে তার একটি দিয়েছিল। তিনি কেবল একটি হাতমোজা পরেছিলো এবং তাকে অনেকদূর যেতে হয়েছিল। আমরা যখন বাড়িতে পৌঁছলাম, শীতের আবহাওয়ার কারণে তার হাত কাঁপছিল। এমনকি সে তার চামচ ধরে রাখতে পারছিল না।  সেদিন থেকে, আমি শপথ করেছিলাম যে যতদিন বেঁচে থাকব, আমি আমার বোনের যত্ন নেব এবং সর্বদা তাকে ভালোবাসবো।’

সাধুবাদ ঘরে ভরে গেল। সমস্ত অতিথি আমার দিকে তাকিয়ে ছিল।  আমার কথা বলতে অসুবিধে হচ্ছিল, “আমার পুরো জীবনে, যাকে আমি সবচেয়ে বেশি ধন্যবাদ জানাতে চাই সে আমার ভাই,” এবং এই আনন্দময় অনুষ্ঠানে, সবার সামনে, আমার মুখটি আবার চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়ছিল।

নৈতিক: আপনার জীবনের প্রতিটি দিনকেই আপনি ভালবাসেন এবং যত্ন করুন যাকে আপনি ভালোবাসেন। আপনি ভাবতে পারেন আপনি যা করেছেন তা কেবল একটি ছোট কাজ, তবে সেই ব্যক্তির কাছে এটির অর্থ অনেকটা হতে পারে। কিছু সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ীভাবে তৈরি করা আল্লাহ্‌র থেকে কিন্তু এগুলো টিকিয়ে রাখার জন্য দরকার ভালবাসা এবং যত্ন সহকারে লালন করা। 

Summary
ভাই এবং বোনের চিরস্থায়ী বন্ধন গল্প
Article Name
ভাই এবং বোনের চিরস্থায়ী বন্ধন গল্প
Description
আপনার জীবনের প্রতিটি দিনকেই আপনি ভালবাসেন এবং যত্ন করুন যাকে আপনি ভালোবাসেন। আপনি ভাবতে পারেন আপনি যা করেছেন..
Author
Publisher Name
Bangla Amader
Publisher Logo

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares
error: Content is protected !!